একটু উষ্ণতার জন্য (ভালোবাসার গল্প) - সূর্যাশীষ ঘোষ - MeghPori

একটু উষ্ণতার জন্য (ভালোবাসার গল্প) – সূর্যাশীষ ঘোষ

Bangla-Premer-golpo-valobasar-golpo-meghpori-web-magazine

একটু উষ্ণতার জন্যসূর্যাশীষ ঘোষ

বহুদিন আগে গ্রীষ্মের এক দুপুরের কথা..

লকাতা থেকে বাড়ি ফিরছি, সেদিন ছিল মিটিং মিছিলের দিন তাই রাস্তায় যথারীতি বাস প্রায় নেই বললেই চলে। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকার পর দূরে দেখতে পেলাম একটা এসি বাস সামনের দিকে আসছে। মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে হওয়ায় প্রথমে একটু সংকোচবোধ করলেও কোনো উপায় নেই, এসি বাসে না উঠলে বাড়ি ফিরতে পারবো না যে, তাই কোনো বাস না পেয়ে আমাকে ওই ব্যায়বহুল এসি বাসেই উঠতে হলো।

যেহেতু দিনটা ছিল ভোট প্রচারের দিন তাই মানুষ সতর্ক হয়ে বাড়তি ঝুঁকি নিয়ে সেদিন রাস্তায় বেরোয়নি এবং কস্টলি হওয়ায় বাসটা খালিই ছিল। আমি উঠে আমার পছন্দ মত ডাবল সিটের জানলার ধারে গিয়ে বসলাম।
খানিকক্ষণ বাসটা এগোনোর পরেই এক তরুণী হাত দেখালো, সেই দেখে বাসের কন্ডাক্টর কাকু যথারীতি ড্রাইভার কে বাস থামানোর জন্য বেল বাজিয়ে তাকে বাসে তুললো। আমি তখন দুই কানে হেডফোন নিয়ে বিয়ে.কম মুভি দেখছিলাম তাই তখন ওইসব লক্ষ্য পড়েনি আমার। তবে একটু অন্যমনস্ক হতেই দেখলাম একটা সুন্দরী মেয়ে গেটের কাছে দাড়িয়ে বাসের পিছনের দিকে মুখ করে ডান দিক বাম দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে হেঁটে হেঁটে আসছে। আসতে আসতে হটাত আমার ডান দিকের সিট টা খালি দেখতে পেয়ে সেই দিকে মেয়েটি অদ্ভুত দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকলো।

তারপর এক অদ্ভুত ঘটনা ঘটলো বাসের এত সিট ফাঁকা থাকতেও মেয়েটি আমার ডান দিকের সিটে বসার ঠিক পূর্বে আমার দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলো,
“এক্সকিউজ মি, এই সিট টা কি কারোর জন্য রাখা?”
আমি তখন অবাক হয়ে ক্ষীণ স্বরে বললাম, “না” ৷

তখন মেয়েটি তার ব্যাগটা তাড়াতাড়ি কাঁধ থেকে নামিয়ে আমার সাইডে বসে পড়লো।
তারপর থেকেই লক্ষ্য করলাম মেয়েটি আমার দিকে মাঝেমাঝেই আড়চোখে তাকাচ্ছে। তখন আমি কিঞ্চিৎ ওকওয়ার্ড ফিল করতে লাগলাম। আমার আর মুভি দেখার দিকে একদমই মন নেই তাও মুভিটা বন্ধ করলাম না বরং মোবাইল এর সাউন্ডটা একটু কমিয়ে দিলাম যাতে করে মেয়েটি কিছু বললে শুনতে পারি। আমি আমার মুভি দেখা কন্টিনিউ করছি সেই সময় বিয়ে.কম মুভিটার পায়েলের সেই রোমান্টিক সিনের মুহূর্তে লক্ষ্য করলাম মেয়েটি আমার মোবাইল এর দিকে তাকিয়ে বুঝতে চাইছে আমি কি দেখছি। তখন আমি একটু লজ্জিত হয়েই মোবাইলটা আড়াল করতে চাইলাম।

তখন দেখি মেয়েটি আমায় বললো, “তুমি যদি কিছু মনে না করো,তাহলে একটা কথা বলতে পারি?”
আমি তখন আরো অবাক হয়ে হালকা ভয়ে ভয়ে বললাম, ‘ই্যা বলুন”।
মেয়েটি তখন একটু খুশি হয়েই বললো,”আমাকে তোমার সিট টাই বসতে দেবে?” (জানলার দিকে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে)
আমি তখন কথা না বাড়িয়ে তাকে আমার সিট টা ছেড়ে দিলাম। তখন আমি মুভি দেখার মুডে না থাকায় বন্ধ করে দিয়ে জাস্ট হেডফোনটা কানে লাগিয়ে রেখেছি। দিয়ে মনে মনে ব্যাপারটা নিয়ে একটু ভাবতে শুরু করলাম। আমি বেশ অবাকই হলাম যে একটা মেয়ে প্রথম একটা ছেলে কে দেখলো, প্রথম দেখাতেই সে আমায় “তুমি” বলে ডাকতে শুরু করে দিলো।
ভাবতে ভাবতেই মেয়েটি আবার আমায় বললো, “তুমি যাবে কোথায়?”

আমি তখন প্রপার জায়গাটার নাম না বলে এক কথায় বললাম,”ঘাটাল”।
সে তখন খুব উত্তেজিত স্বরে বলল, “ওহহ ঘাটাল, ঘাটাল আমি জানি তো খুব ভালো জায়গা”।
আমি তখন কোনো কথা না বলে তার দিকে তাকিয়ে মৃদু হাসলাম। (তারপর খানিক্ষণ সময় পুরোপুরি চুপচাপ)

তারপর মেয়েটি এদিক ওদিক তাকিয়ে আমায় বললো ,”তোমার কি এখানে বাড়ি, না কোনো আত্মীয় বাড়ি?”
আমি তখন একটু বিরক্ত হয়েই বললাম, “দেখুন আমি আর কথা বলতে পারছি না” (মনে মনে ভাবলাম মেয়েটার কি কোনো কাজকর্ম নেই, একতো এত সিট থাকতে এখানে এসে বসলো তারপর বসার পর থেকেই সমানে আমার সাথে বকে চলেছে, কি উদ্দেশ্য কে জানে?)

মেয়েটি তখন আবার বললো, “আচ্ছা তুমি ঘাটালের কোথায় নামবে?”
আমি তখন রেগে আর কিছু কথায় বললাম না। মেয়েটি তখন মৃদু স্বরে আমায় শুনিয়ে শুনিয়ে বললো,”বাব্বা এতো আ্যাটিটিউড, আমি কিছু বলছি কোনো উত্তর দেবারই প্রয়োজন মনে করছে না”।
আমি তখন আর চুপ না থেকে বললাম, “আপনার এত কৌতুহলই বা কিসের? আপনি একটা আলাদা মানুষ, আমি একটা আলাদা মানুষ”।
(এটা বলার পর মেয়েটি এমন কথা আরম্ভ করলো যে আমাদের কথা আর শেষ হবার নয়, আমি বুঝলাম যে ও একটা কথা, আমি একটা কথা এইভাবে বলতে বলতে আমাদের কথা চলতেই থাকবে তাই আর তার দিকে মনোযোগ না দিয়ে আমি আমার মোবাইল এর মাই জিও আ্যাপ খুলে মিউজিক শুনতে শুরু করলাম)

তখন মেয়েটি আবারও বকবক করতে লাগলো কিন্তু একটাও আমার কানে পৌঁছেলো না তাই আমার কাছ থেকে মেয়েটি কোনো রিপ্লাই পেলো না। মেয়েটি কোনো রিপ্লাই না পেয়ে বিরক্ত হয়ে আমার কান থেকে হেডফোন টা খুলে দিল।
আমি তখন প্রচন্ড রেগে গিয়ে বাকি থাকা আরেকটা কানের হেডফোনের তার খুলে বললাম, “আপনি চুপ করে বসবেন না আমি উঠে চলে যাবো?”
সেই দেখে বাসের কন্ডাক্টর ছুটে এসে বললো, “কি হয়েছে দাদা? এনি প্রবলেম?”
আমি বললাম,”কিছু না কাকু, আপনি যান”৷

কন্ডাক্টর চলে যেতেই মেয়েটি একটু হেসে মৃদু স্বরে বললো, “এদিকে ছেলের টনটনে জ্ঞান, বাসের কাকুকে কিছুই বললো না, এতই যদি বিরক্তিভাব তাহলে বাসের কাকুকে বলে আমার অন্য জায়গায় বসার বেবস্থা করলেই পারতো বা ওই ই অন্য জায়গায় গিয়ে বসতে পারতো”।

আমি তখন বললাম, “আপনি ঠিক কি চাইছেন বলুন তো?”

মেয়েটি তখন এক অদ্ভুত শক্তি নিয়ে বললো, “তোর খুব ইগো, তাই না? টা না হলে আমি প্রথম থেকেই তোকে তুমি তুমি করছি আর তুই সেই আমাকে আপনি বলা ছাড়ছিস না”।

আমি তখন অবাক হয়ে লজ্জায় কিছু না বলতে পেরে তার দিকে তাকিয়ে থাকলাম । (আমি মনে মনে ভাবতে লাগলাম মেয়েটি কি বুঝতে পেরে গেছে যে। আমার অনিচ্ছাতেই হয়তো আমার মনে একটু একটু ওর প্রতি ভালোলাগা তৈরি হয়েছে এবং ও কি এটাও বুঝে গেলো যে, আমি নিজে থেকে কাউকে ভালোবাসার কথা বলতে পারি না বা সুন্দর সুন্দরী মেয়ে দেখেলে একটু লাজুক টাইপের হয়ে যায় বলে)

আমাকে একটু চিন্তিত দেখে মেয়েটি আবার বললো, “কিরে, কি ভাবছিস, ভাবছিস যে আমি কি করে তোর ইগোর ব্যাপারে বলতে পারলাম?”
তারপর আমি আর থাকতে না পেরে জোর হেসে দিলাম। তখন বাসের বাকি যাত্রীরা আর ওই কনম্ডাক্টর কাকুও একটু হাসলো এবং বুঝলো আমাদের ব্যাপারটা অচেনা মানুষ থেকে ঝগড়া তারপর সেটাই খুনসুটি তে পরিণত হয়েছে।
(তারপর আর আমদের কথা শেষ হলো না। আমি হেডফোন , মোবাইল সব গুছিয়ে নিলাম)

তারপর আমাদের কথা এরম ভাবে চলছিল..

একটু উষ্ণতার জন্য (ভালোবাসার গল্প) - সূর্যাশীষ ঘোষ Meghpori
মেয়েটি:- দিয়ে বল তোর নাম কি?
আমি:- সূর্যাশীষ
মেয়েটি:- তুই বড্ড ইনোসেন্ট (মুচকি হেসে)
আমি:- কেনো?
মেয়েটি:- নাম জিজ্ঞেস করলে পুরো নাম বলতে হয়, এরম অর্ধেক নাম বললে হয় না
আমি:- ওহহ আচ্ছা সূর্যাশীষ, সূর্যাশীষ ঘোষ (হাসতে হাসতে তাড়াতাড়ি করে বললাম)
মেয়েটি:- বাহ! খুব সুন্দর একটা নাম এবং আমার জীবনে এই নাম টা প্রথম শুনলাম, খুব আনকমন।
আমি:- হুঁ, দাদুর দেওয়া নাম। (তারপর আর বেশি দ্বিধা বোধ না করেই)
আমি:- তোমার নাম?
(মেয়েটি খুব জোর হাসতে শুরু করলো , হাসি থামছে না দেখে আমি আবার বললাম)
আমি:- কি হলো, নাম বলো তোমার?
মেয়েটি:- প্রথমে আপনি তারপর যাইহোক তুই আটলাস্ট আমাকে তুমি বলতে পারলি। এত ফরমালিটি কিসের রে তোর , তুই ও আমাকে “তুই” বলেই ডাকিস। (হালকা চোখ টিপে)
আমি:- আচ্ছা এবার তো তোর নামটা আমাকে বল, তাহলে তো তোকে এবার তোর নাম ধরেই ডাকতে পারবো
মেয়েটি:- প্রিয়াঙ্কা ঘোষ , তুই আমাকে “প্রিয়” বলে ডাকতে পারিস
আমি:- অকে কিন্তু আমি তোকে “প্রিয়” না “প্রিয়া” বলে ডাকবো।
প্রিয়াঙ্কা:- ওকে তাই (মুখটা এমন যেনো বিশ্ব জয় করে ফেলেছে)
আমি:- কথা বলতে বলতে তো বাড়ির কাছাকাছি প্রায় চলেই এলাম রে প্রিয়া, তো তুই কোথায় নামছিস?
প্রিয়াঙ্কা:- সেই তো রে….. (কথাটা বলতে গিয়ে খানিকটা বলে কিছুটা সংকোচবোধ)
আমি:- কিরে কি হলো? বল, থেমে গেলি কেন?
প্রিয়াঙ্কা:- না, আসলে আমি তোকে কি বলে ডাকবো ভেবে পাচ্ছি না তাই একটু থেমে
গেলাম ।
আমি:- একটু হেসে আমি বললাম কেনো পুরো নাম বলতে কি অসুবিধে আছে নাকি?
প্রিয়াঙ্কা:- না তা ঠিক না, আজকের পর থেকে তো আমাদের রোজ কথা হবে তাই অত বড়ো নাম তাই আর কি…
আমি:- ওকে, তুই তোর মত করে শর্ট করে নিস
প্রিয়াঙ্কা:- তাহলে আমি তোকে আজকের পর থেকে “সূর্য” বলেই ডাকবো?
আমি:- আমায় জিজ্ঞেস করছিস নাকি?
প্রিয়াঙ্কা:- হ্যা, ওই আরকি ….(মুখ ভার করে)
আমি:- এতক্ষণ তো খুব বড় বড় কথা বলছিলি, এখন হটাত এত সংকোচ? (মুখ বাঁকিয়ে)
প্রিয়াঙ্কা:- না আসলে আমি চায়, আমি তোকে এমন একটা নামে ডাকবো যেটা তোরও পছন্দ হবে।
আমি:- আচ্ছা, ওটা আমার পছন্দ, আমার কলেজের বন্ধুরাও ওই নামেই ডাকে।
প্রিয়ার হাত টা ধরে)
প্রিয়াঙ্কা:- ওহহ , বাহ।
আমি:- হাম্ম..
মেয়েটি:- প্রিয়াঙ্কা ঘোষ, তুই আমাকে “প্রিয়” বলে ডাকতে পারিস
আমি:- অকে কিন্তু আমি তোকে “প্রিয়” না “প্রিয়া” বলে ডাকবো।
প্রিয়াঙ্কা:- ওকে তাই (মুখটা এমন যেনো বিশ্ব জয় করে ফেলেছে)
আমি:-কথা বলতে বলতে তো বাড়ির কাছাকাছি প্রায় চলেই এলাম রে প্রিয়া, তো তুই কোথায় নামছিস?
প্রিয়াঙ্কা:- সেই তো রে……. (কথাটা বলতে গিয়ে খানিকটা বলে কিছুটা সংকোচবোধ)
আমি:- কিরে কি হলো? বল, থেমে গেলি কেন?
প্রিয়াঙ্কা:- না,আসলে আমি তোকে কি বলে ডাকবো ভেবে পাচ্ছি না তাই একটু থেমে গেলাম ।
আমি:- একটু হেসে আমি বললাম কেনো পুরো নাম বলতে কি অসুবিধে আছে নাকি?
প্রিয়াঙ্কা:- না তা ঠিক না, আজকের পর থেকে তো আমাদের রোজ কথা হবে তাই অত বড়ো নাম তাই আর কি….
আমি:- ওকে, তুই তোর মত করে শর্ট করে নিস
প্রিয়াঙ্কা:- তাহলে আমি তোকে আজকের পর থেকে “সূর্য” বলেই ডাকবো?
আমি:- আমায় জিজ্ঞেস করছিস নাকি?
প্রিয়াঙ্কা:- হ্যা, ওই আরকি… (মুখ ভার করে)
আমি:- এতক্ষণ তো খুব বড় বড় কথা বলছিলি, এখন হটাত এত সংকোচ? (মুখ বাঁকিয়ে)
প্রিয়াঙ্কা:- না আসলে আমি চায়, আমি তোকে এমন একটা নামে ডাকবো যেটা তোরও পছন্দ হবে।
আমি:- আচ্ছা, ওটা আমার পছন্দ, আমার কলেজের বন্ধুরাও ওই নামেই ডাকে। (প্রিয়ার হাত টা ধরে)
প্রিয়াঙ্কা:- ওহহ, বাহ।
আমি:- হাম্ম..
(বলতে বলতে গাড়িটা ঘাটাল ক্রস করছে এবং সেটা প্রিয়া খেয়ালও করেছে)
প্রিয়াঙ্কা:- এই সূর্য, কিরে তোর ঘাটাল তো ক্রস করছি রে, তুই নামবি না? (ভারী বিস্মিত গলায়)
আমি:- না আসলে আমার বাড়ি ঘাটালে না আমার প্রপার বাড়ি কামারগেড়্যা তে, আমাকে রাধানগরে নামতে হবে। তখন আসলে তোকে সত্যি টা বলতে চাইনি তাই প্রপার জায়গার নাম বলিনি।
প্রিয়াঙ্কা:- ওহহ, আচ্ছা। আমায় খুব বাজে মেয়ে ভেবেছিলি, তাই না?
আমি:- আরে না না, সেটা না কিন্তু আমি চাইনি প্রথম কথাতেই আমার নাম, ঠিকানা পেয়ে যাস, তাই..
প্রিয়াঙ্কা:- বুঝলাম, আচ্ছা সূর্য আজকে তোর সাথে যেরকম হলো সেরকম আগে কখনো হয়েছিল নাকি? সত্যি বলবি কিন্তু ..
আমি:- না এরকম, এত বড় কিছু হয়নি বাট স্কুল কলেজে ছোট খাটো হয়েছে।
(প্রিয়া তখন খুব উত্তেজিত ভাবে আমার দিকে তাকিয়ে)
প্রিয়াঙ্কা:- একটু বল বল, কি হয়েছিল?
(গাড়িটা তখন রাধানগরের খুব কাছাকাছি)
আমি:- এবার আমায় উঠতে হবে প্রিয়া, না হলে আবার ব্যাক করে আস্তে হবে, তুই কোথায় নামবি কিন্তু বললি না! (প্রিয়ার তখন মনটা খুব খারাপ হয়ে গেলো)
প্রিয়াঙ্কা:- আমি নামবো গাড়ির একদম লাস্ট স্টপেজে, চন্দ্রকোনা ৷
আমি:- ওকে, চললাম রে প্রিয়া (গলা জড়িয়ে)
(প্রিয়ার তখন দুই চোখে জল ছলছল করছে)
প্রিয়াঙ্কা:- সাবধানে যাস রে ..
আমি:- আসছি তাহলে (হ্যান্ডসেক করে)

আমি তখন গেটের কাছে টিকিট কেটে নামবো বলে দীড়িয়ে আছি, তখন দেখি প্রিয়া আমার দিকে তাকিয়ে অঝোরে কেঁদে যাচ্ছে, আমি চোখে চোখে একটু স্বান্তনা দিয়ে নেমে গেলাম। ঠিক তখনই আমাদের দুজনেরই মনে পড়লো আমরা আমাদের কারোরই কন্টাক নাম্বার শেয়ার করিনি। কথা বলতে বলতে ভুলেই গেছি শেয়ার করতে। তখন বাস রাধানগর থেকে ছাড়ার মুহূর্তে। প্রিয়া তখন বুঝতে পেরেছে যে আমাদের মধ্যে যোগাযোগ করার জন্য কোনো মাধ্যম নেই তারপর সে কি করবে বুঝতে পারছে না, ও ভেবেছে আর হয়তো আমাদের কখনো কথাই হবে না। আমি তখন ওকে সোশালমিডিয়ার আভাস দিই।

আমি:- প্রিয়া! আমার নামে ফেইসবুকে একাউন্ট আছে, ডু নট অরি। চেক করিস এবং পিং করিস। না হলে আমি পিং করবো ।
(তখন দেখলাম প্রিয়া তাও একটু খুশি, ভাবলো যাক কিছু উপায় আছে যোগাযোগ করার, তারপর বাস টা চলে গেলো এবং এটাই ছিল আমাদের মধ্যে ফেস টু ফেস কথা বার্তা)

তারপর অনেক দিন বাড়িতে ব্যাস্ততার জন্য ওর সাথে যোগাযোগ করা হয়নি। তারপর হটাত একদিন দেখি আমার এফবি তে ওর একাউন্ট থেকে ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট, আমি আ্যাকসেপ্ট করার দশ মিনিটের মধ্যেই মেসেঞ্জারে মেসেজ আসলো,
“আমি জানতাম তুই আমায় ভুলে যাবি, আমাদের প্রেম টাকে তুই বাস থেকে নেমেই মেরে ফেলেছিস, তাও আমি তোকে মনে করানোর জন্য আমি এতদিন বাদে পিং করলাম”

আমি রিপ্লাই দিলাম, “ধুর পাগলি, আমি তোকে ভুলতে পারি, আসলে কদিন খুব চাপে ছিলাম তাই খোঁজ নেওয়া হয়নি রে। এই তো আজ থেকে মোটামুটি ফ্রি, এবার যা আমরা রোজ কথা বলবো।”
(মেসেজ সেন্ড হবার সাথে সাথে সিন, যেনো প্রিয়া আমার মেসেজ এর জন্যই ওয়েট করছিল এবং সঙ্গে সঙ্গে সেকেন্ড মেসেজ)
মেসেজ এলো, “সত্যি তুই আজও আমায় ভালো বাসিস তো?”
আমি বললাম, “কোনো ডাউট আছে?”
ওর দিক থেকে মেসেজ এলো, “না”।

এইভাবে আমাদের কথোপকথন চলতে লাগলো। কিছুদিন পরে আমাদের বিয়ে।

গল্পে ব্যাবহৃত প্রত্যেকটি চরিত্রই কাল্পনিক এবং গল্পটি আমার জীবনের সাথে কোনোরূপ মিল নেই। গল্পটি নিছকই মনোরঞ্জনের জন্য লেখা, এর সাথে বাস্তব জীবনের কোনো মিল নেই, গল্পে ব্যাবহৃত জায়গার নাম সত্যি। কোনো ব্যাক্তির সাথে গল্পটা মিলে গেলে আমি কোনোরূপ দায়ী নই।

Please rate this Post

5/5 (1)

Comments are closed.